ফেরাউনের কন্যার মাশিতাহর কাহিনি | রাতের ভ্রমণ এবং ঊর্ধ্বলোকে আরোহণ-৩ | মহানবী হযরত মুহাম্মদ ( সাঃ ) জীবন

ফেরাউনের কন্যার মাশিতাহর কাহিনি | রাতের ভ্রমণ এবং ঊর্ধ্বলোকে আরোহণ-৩, মুসনাদ ইমাম আহমেদ বর্ণিত এক দীর্ঘ হাদিস অনুসারে, নবি করিম (সা) বলেছেন, “ইসরা ও মিরাজের রাতে আমি খুব মিষ্টি একটা গন্ধ পেয়ে জিব্রাইলকে (আ) জিজ্ঞেস করলাম, ‘এই সুন্দর গন্ধটা কীসের? জিব্রাইল (আ) জবাবে বললেন, ‘এই সুগন্ধ ফেরাউনের কন্যার ‘মাণিতাহ’র (অর্থাৎ যে চুল আঁচড়িয়ে দেয়) এবং তার (মাণিতাহর) সন্তানদের। এবার আমি জিব্রাইলের (আ) কাছে জানতে চাইলাম, “তাঁদের কাহিনিটি কী?’ জিব্রাইল (আ) তখন কাহিনিটি বললেন:

 

ফেরাউনের কন্যার মাশিতাহর কাহিনি | রাতের ভ্রমণ এবং ঊর্ধ্বলোকে আরোহণ-৩ | মহানবী হযরত মুহাম্মদ ( সাঃ ) জীবন

 

ফেরাউনের কন্যার মাশিতাহর কাহিনি | রাতের ভ্রমণ এবং ঊর্ধ্বলোকে আরোহণ-৩ | মহানবী হযরত মুহাম্মদ ( সাঃ ) জীবন

ফেরাউনের মেয়ের চুল আঁচড়ে দিচ্ছিলেন তাঁর কেশ পরিচর্যাকারিণী (মাশিতাহ)। হঠাৎ তাঁর হাত থেকে চিরুনি পড়ে গেলে তিনি ‘বিসমিল্লাহ” বলে ওঠেন। তা শুনতে পেয়ে ফেরাউনের মেয়ে বলল, “নিশ্চয়ই তুমি আমার পিতার নাম বোঝাতে চেয়েছ?’ মাশিতাহ বললেন, ‘না; আমার, আপনার এবং আপনার পিতার প্রতিপালক আল্লাহকে বোঝাতে চেয়েছি।’ ফেরাউনের মেয়ে বলল, ‘তুমি কি চাও যে তুমি আমাকে যা বললে, আমি তা আমার পিতাকে বলে দিই?’ মাশিতাই বললেন, “বলতে পারেন।’

ফেরাউন মেয়ের কাছে ঘটনা জানার পর মাশিতাহকে ডেকে জিজ্ঞেস করল, “তুমি কি বলছ যে আমি ছাড়াও তোমার অন্য কোনো প্রতিপালক আছে?’ (দেখুন কোরান (৭৯:২৪] [২৮:৩৮ ) মাশিতাই সাহসের সঙ্গে জবাব দিলেন, ‘হ্যাঁ, আমার এবং আপনার প্রতিপালক আল্লাহ।’ এ কথা শোনার পর ফেরাউন একটি ফুটন্ত গরম কড়াই এনে মাণিতাহ ও তাঁর সন্তানদের কতজন তা সঠিকভাবে জানা যায়নি) বলল, তাঁরা হয় ফেরাউনকে তাঁদের প্রতিপালক হিসেবে স্বীকার করে নেবেন, নতুবা তাঁদেরকে ওই ফুটন্ত কড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।

 

islamiagoln.com google news
আমাদের গুগল নিউজে ফলো করুন

 

এই অবস্থায় মাশিতাই ফেরাউনকে শর্ত দিলেন। তাঁকে ও তাঁর সন্তানদের একসঙ্গে সমাহিত করতে হবে। ফেরাউন এই শর্তে রাজি হওয়ার পর মাণিতাহর সব সন্তানকে একে একে ফুটন্ত কড়াইয়ে নিক্ষেপ করা শুরু হলো তাঁর শেষ সন্তানটি ছিল দুগ্ধপোষ্য শিশু, সে তখনো মায়ের বুকের দুধ পান করত। মাণিতাহ এই দুধের বাচ্চাটিকে নিয়ে একটু দ্বিধায় পড়ে গেলেন। শিশুটি অলৌকিকভাবে কথা বলে উঠল, ‘হে আমার মা! আপনি আমাকে নিয়ে কড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ুন, কারণ এই পৃথিবীর শান্তি পরের পৃথিবীর শান্তির তুলনায় কিছুই নয়। (অন্য বর্ণনায় আছে, শিশুটি বলেছিল, “দ্বিধাগ্রস্ত হবেন না, কারণ আপনি সত্যের পথে রয়েছেন’)।

 

ফেরাউনের কন্যার মাশিতাহর কাহিনি | রাতের ভ্রমণ এবং ঊর্ধ্বলোকে আরোহণ-৩ | মহানবী হযরত মুহাম্মদ ( সাঃ ) জীবন

 

তারপর মাশিতাহ (শিশুটিকে সঙ্গে নিয়ে) ফুটন্ত কড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়লেন। ফেরাউনের মেয়ের ওই কেশ পরিচর্যাকারিণীর নামটি আমরা জানি না। নবিজি (সা) তাঁর উম্মতের নিকট তাঁর শক্ত ইমান, অনুকরণীয় ত্যাগ এবং অপরিসীম সাহসের বর্ণনা দিয়েছেন। আল্লাহ এই কাহিনিটি সংরক্ষণ করতে চেয়েছেন যাতে মুসলিমরা তাঁকে একজন অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত হিসেবে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন। এই কাহিনিটি ওল্ড টেস্টামেন্ট বা ইহুদি ধর্মগ্রন্থে নেই। ঘটনাটি মুসার (আ) উম্মতের ক্ষেত্রে ঘটলেও এর কাহিনি আমাদের উম্মতের মাধ্যমে সংরক্ষিত আছে।

আরও পড়ূনঃ

Leave a Comment