সূরা বাকারা আয়াত ১৩০ | সূরা বাকারা [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । মাদানী সূরা । আল কুরআন

সূরা বাকারা আয়াত ১৩০ ,আল বাকারা (আরবি ভাষায়: سورة البقرة) মুসলমানদের পবিত্র ধর্মীয় গ্রন্থ কুরআনের দ্বিতীয় সূরা, এর আয়াত সংখ্যা ২৮৬ টি এবং এর রূকুর সংখ্যা ৪০ টি। আল বাকারা সূরাটি মদিনায় অবতীর্ণ হয়েছে।

সূরা বাকারা আয়াত ১৩০

সূরা বাকারা আয়াত ১৩০
সূরা বাকারা আয়াত ১৩০

সূরা বাকারা

ইব্রাহীমের ধর্ম থেকে কে মুখ ফেরায়? কিন্তু সে ব্যক্তি, যে নিজেকে বোকা প্রতিপন্ন করে। নিশ্চয়ই আমি তাকে পৃথিবীতে মনোনীত করেছি এবং সে পরকালে সৎকর্মশীলদের অন্তর্ভুক্ত।
And who turns away from the religion of Ibrâhim (Abraham) (i.e. Islâmic Monotheism) except him who befools himself? Truly, We chose him in this world and verily, in the Hereafter he will be among the righteous.

وَمَن يَرْغَبُ عَن مِّلَّةِ إِبْرَاهِيمَ إِلاَّ مَن سَفِهَ نَفْسَهُ وَلَقَدِ اصْطَفَيْنَاهُ فِي الدُّنْيَا وَإِنَّهُ فِي الآخِرَةِ لَمِنَ الصَّالِحِينَ
Waman yarghabu AAan millati ibraheema illa man safiha nafsahu walaqadi istafaynahu fee alddunya wa-innahu fee al-akhirati lamina alssaliheena

সূরা বাকারা আয়াত ১৩০
সূরা বাকারা আয়াত ১৩০

YUSUFALI: And who turns away from the religion of Abraham but such as debase their souls with folly? Him We chose and rendered pure in this world: And he will be in the Hereafter in the ranks of the Righteous.

PICKTHAL: And who forsaketh the religion of Abraham save him who befooleth himself? Verily We chose him in the world, and lo! in the Hereafter he is among the righteous.

SHAKIR: And who forsakes the religion of Ibrahim but he who makes himself a fool, and most certainly We chose him in this world, and in the hereafter he is most surely among the righteous.

KHALIFA: Who would forsake the religion of Abraham, except one who fools his own soul? We have chosen him in this world, and in the Hereafter he will be with the righteous.

রুকু – ১৬

সূরা বাকারা আয়াত ১৩০
সূরা বাকারা আয়াত ১৩০

১৩০। যে তার আত্মাকে নির্বুদ্ধিতার দ্বারা বিকৃত করেছে, সে ব্যতীত ইব্রাহীমের ধর্ম থেকে আর কে বিমুখ হবে? এই পৃথিবীতে আমি তাঁকে মনোনীত করেছি এবং পবিত্র করেছি। পরকালেও সে পূণ্যাত্মাদের অন্তর্ভূক্ত হবে ১৩০।

১৩০। আয়াত [২:১৩০-১৩১]-তে বলা হয়েছে ইব্রাহীমের ধর্ম থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে পারে, যার বিন্দুমাত্র বোধ শক্তি নাই। কারণ এই ধর্মটি হুবহু স্বভাব ধর্ম। কোন সুস্থ স্বভাব ব্যক্তি এই ধর্মকে অস্বীকার করতে পারে না।

এ ধর্মের বদৌলতেই হযরত ইব্রাহীমকে আল্লাহ্‌ ইহকালে সম্মান ও মাহাত্ম্য দান করেছেন এবং পরকালেও। ইব্রাহীমি ধর্মের মূলনীতি হচ্ছে আল্লাহ্‌র আনুগত্য, যার অপর নাম ইসলাম। জগতে পয়গম্বরগণ যত ধর্মই এনেছেন নিজ নিজ সময়ে সে সবই ছিল আল্লাহ্‌র মনোনীত ধর্ম।

সুতরাং নিঃসন্দেহে সে সব ধর্মও ছিল ইসলাম। যদিও সেগুলো এখন আমাদের কাছে বিভিন্ন নামে পরিচিত। যেমন-ইহুদী ধর্ম, খৃষ্ট ধর্ম ইত্যাদি। এসব ধর্মের মূল স্বরূপ ছিল ইসলাম বা এক আল্লাহ্‌র আনুগত্য। তবে এ ব্যাপারে হযরত ইব্রাহীমের ধর্মের একটি বৈশিষ্ট্য ছিল এই যে তিনি নিজ ধর্মের নাম ‘ইসলাম’ রেখেছিলেন। মোট কথা আল্লাহ্‌র পক্ষ থেকে যত পয়গম্বর আগমন করেছেন এবং যত আসমানী গ্রন্থ ও শরীয়ত অবতীর্ণ হয়েছে, সে সবগুলোর প্রাণ হচ্ছে ইসলাম তথা আল্লাহ্‌র আনুগত্য।

এ আনুগত্যের সারমর্ম হলো রিপুর কামনা-বাসনা থেকে আত্মাকে পরিশুদ্ধ করা এবং আল্লাহ্‌র নির্দেশ অনুযায়ী আনুগত্য প্রকাশ করা। এই পৃথিবীতে হিংসা, লোভ-লালসা, কাম, ক্রোধ ইত্যাদি বিভিন্ন রিপু আমাদের কামনা-বাসনাকে ভোগ বিলাসের জীবনে আকর্ষণ করে। ফলে আমরা বিভিন্ন পাপ কাজে নিয়োজিত হয়ে পড়ি।

আল্লাহ্‌র নির্দেশ হচ্ছে পাপ থেকে বিরত থাকা, সত্য ও ন্যায়ের পথে থাকা, সর্ব অবস্থায় আল্লাহ্‌র কাছে আনুগত্য প্রকাশ করা হচ্ছে ইসলামের মর্মবাণী। পরিতাপের বিষয়, আজ ইসলামের নাম উচ্চারণকারী লক্ষ লক্ষ মুসলমান এ সত্য সম্পর্কে অজ্ঞ। তারা ইসলামের মূল অর্থ হৃদয়ঙ্গম না করে এর আচার ও আনুষ্ঠানিকতার উপর বিশেষ গুরুত্ব দেয় এবং একেই ইসলাম ধর্ম নামে অভিহিত করে।

সূরা বাকারা আয়াত ১৩০
সূরা বাকারা আয়াত ১৩০

তারা ধর্মের নামে স্বীয় কামনা-বাসনারই অনুসরণ করে। কুরআন ও হাদিসের এমন ব্যাখ্যাই তাদের কাছে পছন্দ যা তাদের কামনা বাসনার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তারা জানে না যে এসব অপব্যাখ্যার দ্বারা সৃষ্টিকে প্রতারিত করা গেলেও স্রষ্টাকে ধোঁকা দেওয়া সম্ভব নয়। তাঁর জ্ঞান প্রতিটি অণু-পরমাণুতে পরিব্যপ্ত।

তিনি মনের গোপন ইচ্ছা বা কল্পনা সবই দেখেন ও জানেন। তাঁর কাছে পবিত্র আত্মার আনুগত্য কাম্য। পবিত্র সেই আত্মা যে আত্মা হিংসা-দ্বেষ, মিথ্যা, ধোঁকাবাজি ইত্যাদি কলুষতা থেকে মুক্ত। আত্মাকে পূত পবিত্র রাখা স্রষ্টার নির্দেশ।

ন্যায় ও সত্যের পথে চলাও স্রষ্টার নির্দেশ। পৃথিবীর সমস্ত ক্রিয়া কর্ম শুধুমাত্র স্রষ্টার সন্তুষ্টি বিধানের জন্য করাই হচ্ছে স্রষ্টার নির্দেশ। স্রষ্টার নির্দেশ মানাই হচ্ছে স্রষ্টার প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করা।

আরও দেখুনঃ 

সূরা বাকারা পর্ব ৪ । সূচি । [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ৩ । সূচি । [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ২ । সূচি । [ গাভী কুরবানী ] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ১ । সূচি । [ গাভী কুরবানী ] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

নাপাকি এবং নাপাকি থেকে পবিত্রতা অর্জনের উপায়

 

 

Leave a Comment