সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪ | সূরা বাকারা [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । মাদানী সূরা । আল কুরআন

সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪ ,আল বাকারা (আরবি ভাষায়: سورة البقرة) মুসলমানদের পবিত্র ধর্মীয় গ্রন্থ কুরআনের দ্বিতীয় সূরা, এর আয়াত সংখ্যা ২৮৬ টি এবং এর রূকুর সংখ্যা ৪০ টি। আল বাকারা সূরাটি মদিনায় অবতীর্ণ হয়েছে।

সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪

সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪
সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪

সূরা বাকারা

নিশ্চয়ই আমি আপনাকে বার বার আকাশের দিকে তাকাতে দেখি। অতএব, অবশ্যই আমি আপনাকে সে কেবলার দিকেই ঘুরিয়ে দেব যাকে আপনি পছন্দ করেন। এখন আপনি মসজিদুল-হারামের দিকে মুখ করুন এবং তোমরা যেখানেই থাক, সেদিকে মুখ কর। যারা আহলে-কিতাব, তারা অবশ্যই জানে যে, এটাই ঠিক পালনকর্তার পক্ষ থেকে। আল্লাহ বেখবর নন, সে সমস্ত কর্ম সম্পর্কে যা তারা করে।

Verily! We have seen the turning of your (Muhammad’s SAW) face towards the heaven. Surely, We shall turn you to a Qiblah (prayer direction) that shall please you, so turn your face in the direction of Al-Masjid- al-Harâm (at Makkah).

And wheresoever you people are, turn your faces (in prayer) in that direction. Certainly, the people who were given the Scriptures (i.e. Jews and the Christians) know well that, that (your turning towards the direction of the Ka’bah at Makkah in prayers) is the truth from their Lord. And Allâh is not unaware of what they do.

قَدْ نَرَى تَقَلُّبَ وَجْهِكَ فِي السَّمَاء فَلَنُوَلِّيَنَّكَ قِبْلَةً تَرْضَاهَا فَوَلِّ وَجْهَكَ شَطْرَ الْمَسْجِدِ الْحَرَامِ وَحَيْثُ مَا كُنتُمْ فَوَلُّواْ وُجُوِهَكُمْ شَطْرَهُ وَإِنَّ الَّذِينَ أُوْتُواْ الْكِتَابَ لَيَعْلَمُونَ أَنَّهُ الْحَقُّ مِن رَّبِّهِمْ وَمَا اللّهُ بِغَافِلٍ عَمَّا يَعْمَلُونَ

সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪
সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪

Qad nara taqalluba wajhika fee alssama-i falanuwalliyannaka qiblatan tardaha fawalli wajhaka shatra almasjidi alharami wahaythu ma kuntum fawalloo wujoohakum shatrahu wa-inna allatheena ootoo alkitaba layaAAlamoona annahu alhaqqu min rabbihim wama Allahu bighafilin AAamma yaAAmaloona

YUSUFALI: We see the turning of thy face (for guidance to the heavens: now Shall We turn thee to a Qibla that shall please thee. Turn then Thy face in the direction of the sacred Mosque: Wherever ye are, turn your faces in that direction. The people of the Book know well that that is the truth from their Lord. Nor is Allah unmindful of what they do.

PICKTHAL: We have seen the turning of thy face to heaven (for guidance, O Muhammad). And now verily We shall make thee turn (in prayer) toward a qiblah which is dear to thee. So turn thy face toward the Inviolable Place of Worship, and ye (O Muslims), wheresoever ye may be, turn your faces (when ye pray) toward it. Lo! Those who have received the Scripture know that (this revelation) is the Truth from their Lord. And Allah is not unaware of what they do.

SHAKIR: Indeed We see the turning of your face to heaven, so We shall surely turn you to a qiblah which you shall like; turn then your face towards the Sacred Mosque, and wherever you are, turn your face towards it, and those who have been given the Book most surely know that it is the truth from their Lord; and Allah is not at all heedless of what they do.

KHALIFA: We have seen you turning your face about the sky (searching for the right direction). We now assign a Qiblah that is pleasing to you. Henceforth, you shall turn your face towards the Sacred Masjid. Wherever you may be, all of you shall turn your faces towards it. Those who received the previous scripture know that this is the truth from their Lord. GOD is never unaware of anything they do.

১৪৪। [নির্দেশের জন্য] আকাশের দিকে তোমার বার বার তাকানোকে আমি লক্ষ্য করি ১৪৭। সুতরাং এখন তোমাকে এমন কিব্‌লার প্রতি ফিরিয়ে দেবো যা তোমাকে সন্তুষ্ট করবে। অতএব, তুমি মসজিদুল হারামের দিকে মুখ ফিরাও ১৪৮।

তোমরা যেখানেই থাক না কেন তোমরা উহার দিকে মুখ ফিরাবে। কিতাব প্রাপ্তরা ভালভাবেই জানে যে, উহা তাদের প্রভুর প্রেরিত সত্য ১৪৯। তারা যা করে আল্লাহ্‌ সে সম্বন্ধে অমনোযোগী নন।

১৪৭। এই আয়াত [২:১৪৪] থেকে স্পষ্ট প্রতীয়মান হয় আমাদের নবীর (সাঃ) কিব্‌লার দিক সম্পর্কে স্বর্গীয় নির্দেশের জন্য আন্তরিকতা, আকুলতা। যতদিন পর্যন্ত মুসলমানেরা তাদের নিয়ম-নীতি অনুযায়ী এক বিশেষ সম্প্রদায়ে পরিণত না হয়েছে ততদিন আমাদের রাসূল (সাঃ) ইহুদী ও খৃষ্টান সম্প্রদায়ের কিব্‌লা জেরুজালেমের অনুসরণ করতেন।

সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪
সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪

কিন্তু সমস্ত ইহুদী ও খৃষ্টানেরা একই কিব্‌লা অনুসরণ করতো না। কিছু কিছু ইহুদী বিশেষভাবে যখন তারা বন্দী হতো তারা জেরুজালেমের দিতে মুখ করে উপাসনা করতো। কারণ আমাদের নবীর আমলে জেরুজালেম বাইজানটাইন সাম্রাজ্যের অন্তর্ভূক্ত ছিল-আর বাইজানটাইন সম্রাট ছিলেন খৃষ্টান। কিন্তু খৃষ্টানেরা তাদের চার্চের মুখ পূর্বদিকে পরিবর্তন করে।

এই পরিবর্তন কোন বিশেষ কেব্‌লার জন্য তারা করে নাই। তারা কম্পাসের পূর্বদিক হিসেবে শুধুমাত্র একটি দিক নির্দেশনা হিসেবে এটা করে। কারণ বর্তমানেও দেখা যায় বিভিন্ন চার্চের বেদী ও বসার স্থান বিভিন্ন দিকে। তার মানে এই, তারা কোনও বিশেষ কিব্‌লার দিকে মুখ করে না। কিন্তু আমাদের নবী এক আল্লাহ্‌ বিশ্বাসীদের এক সত্যে, এক বিশ্বাসে, এক নীতিতে একতাবদ্ধ করতে চেয়েছিলেন।

তাই যখন আল্লাহ্‌ কর্তৃক কাবাকে মুসলমানদের জন্য কিব্‌লা নির্ধারিত করা হয়; আমাদের নবীর হৃদয় স্বাভাবিকভাবে আনন্দে উদ্বেলিত হয়ে ওঠে। এই সেই স্থান যে স্থানের ঐতিহ্য গড়ে উঠেছে আল্লাহ্‌ কর্তৃক মনোনীত হযরত ‌ইব্রাহীম (আঃ) দ্বারা কাবা গৃহ নির্মাণের মাধ্যমে। এই সেই কাবা গৃহ যার ভিত্তিপ্রস্তর প্রথম স্থাপিত হয় ফেরেশ্‌তাদের দ্বারা হযরত আদম (আঃ) এর পূর্বে।

সুতরাং আরবদের মাঝে প্রেরিত নবীর জন্য সেই ঐতিহ্যবাহী স্থানকে কিব্‌লা হিসেবে পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা খুবই স্বাভাবিক এবং আল্লাহ্‌ তাঁর নবীর সেই আকাঙ্ক্ষা পূরণ করেছেন; যেনো সমস্ত আরব এবং বিশ্ববাসী এক কিব্‌লার দিকে মুখ করে আল্লাহ্‌র এবাদত করতে পারে এবং নিজেদের মধ্যে তাওহীদের সত্যকে অনুভব করে একাত্মতা বোধ করে।

কিন্তু যখন আল্লাহ্‌র তরফ থেকে কাবা গৃহকে কিব্‌লা মনোনীত করা হয় তখন মুসলিম সম্প্রদায় ছিল অত্যন্ত ছোট এবং মদীনায় নির্বাসিত। কিন্তু আল্লাহ্‌ কর্তৃক কাবাকে কিব্‌লা মনোনীত করার ফলে মুসলমানদের মধ্যে প্রচণ্ড অনুপ্রেরণার জন্ম নেয়। তারা বিশ্বাস করে যে তাদের জয় সুনিশ্চিত।

পরবর্তীতে মুসলমানদের মক্কা জয়ই তার প্রমাণ এবং আজ সমস্ত মুসলিম জগতের একমাত্র কিব্‌লা হচ্ছে কাবা। সারা মুসলিম জগত যখন কাবা শরীফের দিকে মুখ করে নামাজ পড়ে তখন তারা একই ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে আবদ্ধ হয়।

সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪
সূরা বাকারা আয়াত ১৪৪

১৪৮। ‘মসজিদুল হারাম বা পবিত্র মসজিদ’ পবিত্র মক্কা নগরীতে কাবা গৃহের অবস্থান। এটা ঠিক নয় যে কাবাকে কিব্‌লা মনোনীত করার ফলে আয়াত [২:১১৫] রহিত হয়ে গেলো। বলা হয়েছে পূর্ব-পশ্চিম সর্বত্রই আল্লাহ্‌ বিরাজমান। অর্থাৎ আল্লাহ্‌র সত্তা কোনও বিশেষ স্থানে সীমাবদ্ধ নয়। আল্লাহ্‌র অস্তিত্ব পূর্ব, পশ্চিম, উত্তর, দক্ষিণ, আকাশ, পাতাল, নভোমন্ডল সর্বত্র বিদ্যমান।

এই সত্য কাবা গৃহ কিব্‌লা হিসেবে মনোনীত হওয়ার পূর্বেও ছিল পরেও আছে। এই সত্যকে গুরুত্ব দেয়ার জন্য এই সত্যের প্রতিধ্বনি করা হয়েছে [২:১৪২] আয়াতে।

১৪৯। একটি নির্দিষ্ট কিব্‌লা অনুসরণের সৌন্দর্য্য এর পূর্বেও ইহুদী ও খ্রষ্টানদের মধ্যে প্রচলিত ছিল। তবে তা এত সুদূঢ় নীতির উপর প্রতিষ্ঠিত ছিল না। কিব্‌লার আন্তর্জাতিক রূপায়ন ও স্বীকৃতি শুধুমাত্র ইসলামই প্রবর্তন করে।

আরও দেখুনঃ 

সূরা বাকারা পর্ব ৭ । সূচি । [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ৬ । সূচি । [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ৫ । সূচি । [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ৪ । সূচি । [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ৩ । সূচি । [ গাভী কুরবানী] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ২ । সূচি । [ গাভী কুরবানী ] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

সূরা বাকারা পর্ব ১ । সূচি । [ গাভী কুরবানী ] সূরা নং ২ । পবিত্র কুরআন ।

নাপাকি এবং নাপাকি থেকে পবিত্রতা অর্জনের উপায়

 

 

Leave a Comment